পদ্মা সেতুতে লক্ষ মাথার গুজব ও বাস্তবতা,, সঠিক উত্তরটা পাওয়া গেল

0
52

শিরোনাম :
মেসেজের পর মেসেজ পাচ্ছি, অনেকে স্টাটাস দিচ্ছে, পদ্মা সেতুর কাজ শেষ করতে এক লক্ষ মানুষের মাথা প্রয়োজন। বলা হচ্ছে পাড়ায় পাড়ায় ছেলেধরা নেমেছে। তারা ছোটশিশুদের জীবিত কিংবা মাথা কেটে নিয়ে যাচ্ছে। কেউ কেউ ভিডিও বা ছবি শেয়ার দিচ্ছেন ছেলে ধরার কিংবা কাটা মাথার। এর ভিতর হয়ত দুয়েকজন কোন কারনে নিখোঁজ হয়েছে। ব্যস, চারদিকে ব্যাপক আতংক। অনেকেই বাচ্চাদের স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছেন।

এই আতংকের গোড়া কিন্তু পদ্মা সেতু থেকেই।

পদ্মা সেতুর ট্রায়াল পাইল স্থাপনে এ্যাংকর পাইলের কাজ শুরু করার সময় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ কোম্পানি তাদের রীতি অনুযায়ী দু’টি কালো ষাঁড় গরু, দু’টি খাসি ও দু’টি মোরগ পদ্মা নদীতে উৎসর্গ করে। সেই লক্ষে এগুলো জবাই করে বিশেষ কৌশলে রক্তগুলো সরাসরি পদ্মায় দেয় হয়। চীনের রীতি অনুয়ায়ী কাজের সফলতা ও দুর্ঘটনা রোধে এই পশু উৎসর্গ করা হয়। ষাঁড়ের সামনের দু’রান অর্থ্যাৎ দুইটি গরুর চারটি রান পদ্মা নদীতে উৎসর্গ করে ছেড়ে দেয়া হয়।

এখন গুজব রটেছে ষাঁড়, খাসি, মোরগ দিয়ে কাজ হচ্ছেনা। পদ্মা সেতুর কাজ শেষ করতে চাই লক্ষ মানুষের মাথা। ব্যস আতংক ছড়িয়ে পড়ল চারদিকে। মেসেজ, স্টাটাস, ভিডিও শেয়ারিং। হুলস্থুল, তোলপাড়। অমুক জায়গায় ৫ জন, নিখোঁজ, তমুক জায়গায় এতজন গায়েব। আমি খবর নিতে চেষ্টা করেছি। দুয়েকটা মিসিং কেস অবশ্য আছে। কিন্তু গনহারে কল্লা নেয়ার কোন সত্যতা নেই।

অভিভাবকগন, দয়া করে আতংকিত হবেননা। শিশুদের ব্যাপারে স্বাভাবিক সতর্কতা অবশ্যই কাম্য। যেহেতু চারদিকে পানি। পানি থেকে বাচ্চাদের সাবধান রাখা দরকার। শিশু পাচারকারী অপহরনকারীদের তৎপরতা সবসময় ছিল। স্কুলে আনা নেয়ার সময় প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা নিশ্চিত করবেন। শিশুরা যৌন নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। সেটার ব্যপারেও সাবধান থাকবেন। স্বাভাবিক সতর্কতা অবশ্যই কাম্য। কিন্তু পদ্মা সেতু সম্পর্কিত গুজবের কোন ভিত্তি নেই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here